রবিবার , ডিসেম্বর ১৫ ২০১৯
শিরোনাম

অশান্ত দার্জিলিংয়ে মোর্চার তাণ্ডব অব্যাহত

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের পার্বত্য এলাকা দার্জিলিংয়ে গত ১২ জুন থেকে শুরু হওয়া গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার অনির্দিষ্টকালের বন্‌ধ্‌ এখনো চলছে। তাণ্ডব অব্যাহত রয়েছে জনমুক্তি মোর্চার। গতকাল শুক্রবার দার্জিলিং জেলার চকবাজার ও চৌরাস্তায় হাতে লেখা মাওবাদীদের পোস্টার পড়েছে। ওই পোস্টারে মাওবাদীরা গণতান্ত্রিক আন্দোলন ছেড়ে হিংসাত্মক আন্দোলনে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে। পাশাপাশি দার্জিলিং ও কালিম্পংয়ের জেলা প্রশাসক ও জেলা পুলিশ সুপারকে তিন দিনের মধ্যে পাহাড় ছাড়ার হুমকি দিয়েছে।

শুক্রবার গভীর রাতে সোনাদার একটি গ্রাম পঞ্চায়েত অফিস ও তিনধারিয়ার ভূমি ও ভূমি রাজস্ব দপ্তরের অফিসে আগুন লাগানো হয়েছে। যদিও জনমুক্তি মোর্চার তরফে বলা হয়েছে, এই আগুন লাগানোর পেছনে মোর্চার হাত নেই। রাজ্য সরকারের হাত রয়েছে বলে তারা অভিযোগ করেছে। এদিকে কারা পোস্টার লিখেছে, তা খুঁজে বের করার জন্য মোর্চা নেতা তিলকচাঁদ রোকা পোস্টারের হাতে লেখাগুলো হস্তরেখা বিশেষজ্ঞদের দিয়ে পরীক্ষা করানোর দাবি তুলেছেন। যদিও এর আগে অভিযোগ উঠেছিল মাওবাদীদের সঙ্গে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার যোগ রয়েছে।
এদিকে এই অনির্দিষ্টকালের বন্‌ধের জেরে দার্জিলিংজুড়ে খাবারের অভাব দেখা দিয়েছে। বন্ধ রয়েছে হাটবাজার, স্কুল-কলেজ। তবে মোর্চার সমর্থকেরা কিছু এলাকায় অপটিক্যাল ফাইবার কেটে ফেলায় এখনো অনেক এলাকায় চালু করা যায়নি টেলিফোন যোগাযোগ। বন্ধ রয়েছে ইন্টারনেট পরিষেবা।
অন্যদিকে মিরিকে যুব মোর্চার সমর্থকেরা খালি গায়ে টিউবলাইট ভেঙে শরীরকে রক্তাক্ত করে মিছিল করেছে।
এদিকে পৃথক গোর্খাল্যান্ড রাজ্যের দাবিতে অনশনরত মোর্চার এক সমর্থকের শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটেছে। সরকারিভাবে তাঁর চিকিৎসার প্রস্তাব দেওয়া হলেও মোর্চার ওই সমর্থক চিকিৎসা নিতে অস্বীকার করেছেন।