রবিবার , ডিসেম্বর ১৫ ২০১৯
শিরোনাম

তিন মাসে ১৩ কারখানার সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে অ্যালায়েন্স

ত্রুটি সংস্কারকাজে সন্তোষজনক অগ্রগতি না হওয়ায় গত তিন মাসে ১৩টি পোশাক কারখানার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছে উত্তর আমেরিকার ক্রেতাদের জোট অ্যালায়েন্স ফর বাংলাদেশ ওয়ার্কার সেফটি। সব মিলিয়ে অ্যালায়েন্স ব্যবসায়িক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে এমন কারখানার সংখ্যা ১৫৮-তে দাঁড়াল।

অ্যালায়েন্স গত এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত যে ১৩ কারখানার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছে সেগুলো হচ্ছে চট্টগ্রামের ইস্টার্ন ড্রেসেস, টঙ্গীর মস্কো প্রিন্টিং অ্যান্ড এমব্রয়ডারি, চট্টগ্রামের তারিক আজিম টেক্সটাইল মিলস, ওয়াই বি গার্মেন্টস, মাসট্রেও অ্যাপারেলস, ঢাকার বান্দো অ্যাপারেলস, মানিকগঞ্জের বিউটিফুল জ্যাকেট, সাভারের দি ক্লথ অ্যান্ড ফ্যাশন, চট্টগ্রামের সিঅ্যান্ডএ ফ্যাশন, গাজীপুরের লা নাউভেটক্স নিট ফ্যাশন, নারায়ণগঞ্জের গ্লাডিওলাস ফ্যাশন ওয়্যার, চট্টগ্রামের লিবার্টি পলি জোন এবং গাজীপুরের বিএইচআইএস অ্যাপারেলস লিমিটেড।

অ্যালায়েন্স জানিয়েছে, শাস্তি পাওয়া কারখানাগুলো ওয়ালমার্ট, টার্গেট, জেসি পেনি, গ্যাপসহ ২৯টি ব্যান্ড ও ক্রেতাপ্রতিষ্ঠানের পোশাকের ক্রয়াদেশ পাবে না। তবে কারখানাগুলো পুনরায় ত্রুটি সংশোধনে সন্তোষজনক অগ্রগতি করলে এই নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্ত হতে পারবে।

রানা প্লাজা ধসের পর বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাতের কর্মপরিবেশ উন্নয়নে উত্তর আমেরিকা ক্রেতাদের জোট অ্যালায়েন্স গঠিত হয়। জোটের সদস্য ব্র্যান্ড ও ক্রেতাপ্রতিষ্ঠান বর্তমানে ২৯। পাঁচ বছরের জন্য এই জোট গঠিত হলেও এটির সময়সীমা আরও বাড়তে পারে। এখন জোটের সদস্যভুক্ত কারখানার সংখ্যা ৬৬৬।